সংস্কারের অভাবে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে হরিপুর রাজবাড়ী

ঠাকুরগাঁও (হরিপুর) প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলায় অবস্থিত রাঘবেন্দ্র জমিদার বাড়িটি যত্ন আর সংস্কারের অভাবে এখন ধ্বংসের মুখে

১৪০০ খ্রীঃ পূর্বে মুসলিম শাসনামলে হরিপুর উপজেলার খোলড়া পরগনার অন্তগত ছিল মেহেরুন্নেছা ওরফে কামরুন নাহার নামে এক বিধবা মুসলিম মহিলার ওপর ছিল পরগনার জমিদারি খাজনা অনাদায়ে জমিদার মেহেরুন্নেছার জমিদারির অংশবিশেষ নিলামে উঠলে কাপড় ব্যবসায়ী ঘনশ্যাম কুণ্ডু তা কিনে নেন

ঘনশ্যাম কুণ্ডুর পরবর্তী বংশধরদের একজন রাঘবেন্দ্র রায়। তিনি ১৮৯৩ সালে রাজবাড়ীর নির্মাণ কাজ শুরু করেন তার পুত্র জগেন্দ্র নারায়ণ রায় উনবিংশ শতাব্দীর শেষ দিকে রাজবাড়ীর নির্মাণ কাজ শেষ করেন।

ভবনটির পূর্ব পাশে শিব মন্দির মন্দিরের সামনে নাট্যশালা ছিল এখানে একটি বড় পাঠাগার ছিল। রাজবাড়ীর সামনে ছিলো সিংহ দরজা, আজ সেই সিংহ দরজা আর নেই ১৯০০ সালের দিকে ঘনশ্যামের বংশধররা বিভক্ত হয়ে গেলে হরিপুর রাজবাড়ীও দুটি অংশে বিভক্ত হয়ে পরে

রাঘবেন্দ্র জগেন্দ্র নারায়ন রায় কর্তৃক রাজবাড়ীটি বড় তরফের রাজবাড়ী নামে পরিচিতি পায়।রাজবাড়ীর পশ্চিমে নগেন্দ্র নারায়ণ চৌধুরী গিরিচা নারায়নচৌধুরী ১৯১৩ সালে আরেকটি রাজবাড়ী নির্মান করেন। যার নাম ছোট তরফের রাজবাড়ী হরিপুরের এই ঐতিহ্যবাহী রাজবাড়ীটি সংস্থারের অভাবে কালের সাক্ষী হয়ে দারিয়ে আছে বর্তমানে পরিত্যক্ত রাজবাড়ীর বিভিন্ন কক্ষে বিভিন্ন অফিস বাসা বাড়ী হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে

ব্যাপারে স্থানীয় কয়েকজন বলেন, হরিপুর রাজবাড়ী দুটি এলাকার একটি ঐতিহ্যবাহী নিদর্শন। ঐতিহ্য ধরে রাখতেএটি সংস্কার করা উচিত


অন্যান্য