ফরিদগঞ্জে শিক্ষা ও রাজনীতিতে অবিস্মরণীয় সিরাজুল হক বিএড’র ৬ষ্ঠ মৃত্যুবাষির্কী আজ

গাজী মমিন:
আজ ১২ রমজান জেলা পরিষদের সদস্য মো. মশিউর রহমান মিটু’র পিতা মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মরহুম সিরাজুল হক বিএড এর ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী। এ উপলক্ষে মরহুমের নিজ বাড়িতে দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। সিরাজুল হক বি.এড হিজরি ১৪৩৪ সনের ১২ রমজান ইফতার পূর্ব মর্হুত্বে মোনাজাতরত অবস্থায় ইন্তেকাল করেন (ইন্না.. রাজিউন)।

জানা যায়, বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে চাঁদপুর জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি, ফরিদগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ও উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেছেন। স্পষ্টভাষী এই নেতা আ’লীগের রাজনীতিতে দুঃসময়ে সামনে থেকে নেতৃত্ব প্রদান করেছেন।
বিশিষ্ট এই মুক্তিযোদ্ধা ১৯৪৬ সালের ২০ মে ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৫নং গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নের ত্রিদোনা গ্রামের ঐতিহ্যবাহী ভূঁইয়া বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগ্রাম কমিটির সদস্য ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম সিরাজুল হক বিএড। জীবদ্দশায় অধিকাংশ সময় তিনি নিজেকে শিক্ষা, রাজনৈতিক ও সামাজিক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত রাখেন। বিশেষ করে ফরিদগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরে দায়িত্ব পালনকালে সংগঠনের নিজস্ব সম্পত্তি ও ভবন নির্মানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। শিক্ষকদের যে কোন দাবী-দাওয়া আদায়ে তিনি সামনে থেকে নেতৃত্ব প্রদান করতেন। যার জন্যে শিক্ষক সমাজে তিনি ব্যাপক জনপ্রিয় ও সামদৃত ছিলেন তিনি।

এছাড়াও তিনি কালির বাজার মিজানুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালনকালে বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর নির্মান ও শিক্ষার মান উন্নয়ন করে বিদ্যালয়কে অন্যন স্থানে নিয়ে যান।
এছাড়াও তিনি ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের পর ৫নং গুপ্টি (পূর্ব) ইউনিয়ন পরিষদের সফল চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ঐতিহ্যবাহী খাজুরিয়া ইউথ ক্লাবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। মরহুম রুহের মাগফিরাত কামনা ও দোয়া অনুষ্ঠানে শরিক হওয়ার জন্যে পরিবারের পক্ষ থেকে সকলের প্রতি বিনিত অনুরোধ জানিয়েছেন মরহুমের একমাত্র ছেলে জেলা পরিষদের সদস্য মো. মশিউর রহমান মিটু।


অন্যান্য