পঞ্চগড়ে কথিত প্রেমিক প্রেমিকা এলাকাবাসীর কাছে আটক

মো: বাবুল হোসাইন পঞ্চগড় জেলা প্রতিনিধি: পঞ্চগড় সদর উপজেলার পুরাতন পঞ্চগড় এলাকার ইসলামপুরে স্থানীয়দের কাছে আটক হলেন পূর্বের প্রেমিকার সাথে প্রেমিক। স্থানীয়রা জানায় তারা এসময় অবৈধ কাজে লিপ্ত ছিলো। আটক প্রেমিকা এক সময় প্রেমিকের সাথে বিয়েও হয়েছিলো। ঘটনার বিবরনে জানা গেছে, পঞ্চগড় সুগার মিল কলোনীর বাসিন্দা মোঃ সফি আলমের কন্যা শ্রাবন্তী সাথে একই এলাকার মোঃ সায়েদ আলীর ছেলে পলাশের সাথে দীর্ঘদিন ধরে মন নেয়াদেয়া চলে আসছিলো।

বিষয়টি জানাজানির পর উভয়ের পরিবারের সম্মতিতে তাদের বিয়ে দেয়া হয়।এরপর কিছুদিন যেতে না যেতেই পলাশের পরিবার শ্রাবন্তীকে মেনে নিতে পারছিলো না। পরবর্তীতে পরিবারের সস্মতিক্রমে শ্রাবন্ত্রীকে ৩ লাখ ৭০ হাজার টাকা দিয়ে ডিফোর্স দেয় পলাশ। এরপর পঞ্চগড় সদর উপজেলার লাঙ্গলগাঁও গ্রামের মোঃ জহিরুল ইসলামের কণ্যার সাথে শরাশরিয়ত অনুযায়ী বিয়ে হয় পলাশের। কিন্তু সম্পক অবনতির কারনে পলাশের ওই স্ত্রী গত ৭ মাস আগে বাবার বাড়ীতে চলে যায়। এরপর হঠাৎ পুরাতন পঞ্চগড়ের ইসলামপুর এলাকার মৃত হাকিমের বাড়ীতে শ্রাবন্ত্রী ও পলাশকে আটক করে স্থানীয় জনগন।

এ ব্যাপারে তাৎক্ষনিকভাবে স্থানীয়রা জড়োহয় সেখানে। খবর পেয়ে ছুটে আসেন পৌর কাউন্সিলর সহ গন্যমান্য ব্যাক্তি। সেখানে আসেন পলাশের বর্তমান শশুড় মোঃ সফি আলম ও পলাশের বাবা মোঃ সায়েদ আলী।বিষয়টি নিয়ে টান টান উত্তেজনা তৈরী হয়। এসময় প্রেমিক যুগলকে হাকিমের বাড়ীতে অবস্থান করতে দেখা যায়।
পলাশের সাথে সরাসরি কথা বললে সে জানায়, সে শ্রাবন্ত্রীকেই চায়। এ বিষয়ে স্থানিয় পৌর কাউন্সিলর বলেন, মুরব্বীরা বসেছে, তারা কি সিদ্ধান্ত নেয় দেখি। এ বিষয়ে পঞ্চগড় সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আক্কাস আলী বলেন, আমি পুলিশ ভ্যান পাঠিয়েছি তাদের দু’জনকে থানায় নিয়ে আসতে।


দেশজুড়ে