গাজীপুরের শ্রীপুরে ফুট ওভারব্রিজের নিচে ভবঘুরে ও মাদকসেবীদের আড্ডা

মহিউদ্দিন আহমেদ, গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরের শ্রীপুরে রেলষ্টেশনে সাধারণ পথচারীরা ফুট ওভারব্রিজ ব্যবহার না করায় নির্মানের তিনবছরেই ফুট ওভারব্রিজটি ভবঘুর ও মাদকসেবীদের দখলে চলে গেছে। আর স্থানীয়দের অভিযোগ এই ফুট ওভারব্রীজটি সম্পূর্ন অপরিকল্পিত ভাবে নির্মান করায় তা ব্যবহারে পথচারীরা আগ্রহী হচ্ছেন না।

রেলবিভাগ ও স্থানীয়দের তথ্যমতে,জয়দেবপুর-ময়মনসিংহ রেল সড়কের গুরুত্বপূর্ণ একটি রেল ষ্টেশন শ্রীপুর। এই ষ্টেশন আঙিনায়  রেল লাইন অতিক্রম করে গেছে শ্রীপুর-কাপাসিয়া সড়ক। রেল আসা যাওয়ার সময় যানজটের ভোগান্তির  কথা বিবেচনা করে রেল ষ্টেশন কর্তৃপক্ষ এই সড়কের রেল লাইনের উপর একটি উড়াল সড়ক নির্মানের আবেদন করেন। কিন্তু রেল বিভাগ উড়াল সড়ক নির্মান না করে বিগত ২০১৬সালে একটি ফুটওভারব্রিজ নির্মাণ করেন।  অপরিকল্পিতভাবে ফুট ওভারব্রিজ নির্মাণের ফলে তা সাধারণ পথচারীরা আর ব্যবহার করেনি।  আর এ সুযোগে ফুট ওভারব্রিজটি পরিনত হয় ভবঘুরে ও মাদকসেবীদের আড্ডায়।  ফুটওভারব্রিজ ঘিরে প্রতিনিয়ত রেল স্টেশন আঙিনায় অপরাধীদের আনাগোনা থাকায় প্রতিনিয়ত ঘটছে চুরি, ছিনতাইয়ের মত নানা ধরনের অপরাধ।

স্থানীয়রা জানান ,ফুট ওভারব্রিজটির কোন ধরনের প্রয়োজনীয়তা এখানে ছিল না। এখানে এটি নির্মান করায় এখন এটি সরকারে অর্থ অপচয়ের স্বাক্ষী বহন করে আসছে। সাধারন পথচারীরা এটি ব্যবহার না করায় এখানে নিয়মিত বসে মাদকসেবীদের আড্ডা। এছাড়াও ভবঘুরেরা এখানে নিয়মিত অবস্থান করে থাকেন। এখানে অপরাধীদের আড্ডা থাকায় এই ষ্টেশন এলাকায় সম্প্রতি যাত্রীদের মালামাল চুরী, ও নারীরা ছিনতাইয়ের কবলে পড়ছেন। নানা ধরনের অপরাধও বাড়ছে।

গাজীপুরের আজিমউদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ইংরেজী বিভাগের শিক্ষার্থী তাজুল ইসলাম বলেন, এই ফুটওভারব্রিজটি সম্পূর্ণ অপরিকল্পিতভাবে স্থাপন করা হয়েছে। এর কোন সংযোগ সড়ক নেই,এছাড়াও ট্রেন আসা যাওয়ার সংকেত দেয়ার পর যানবাহন চলাচলের প্রতিবন্ধকতা হলেও পথচারীদের রেল সড়ক পাড় হতে কোন সমস্যা হয় না। নানা কারনে এটি ব্যবহৃত হয়না। তবে এই অব্যবহৃত ফুটওভারব্রিজে ভবঘুরে, মাদকসেবীরা নিয়মিত সকাল থেকে আড্ডা জমান। বিছানা পেতে তারা তা দখল করে রাখেন। কেউ ভুল করে এতে উঠে পড়লে নানাভাবে হেনস্থার শিকার হতে হয়।

শ্রীপুর রেলওয়ের স্টেশন মাস্টার হারুনুর রশিদ জানান, এই ফুটওভারব্রিজটি নির্মাণের পর নানা কারণে পথচারীরা ব্যবহার করেননি। প্রকৃতপক্ষে এই ফুটওভারব্রিজের এখানে কোন প্রয়োজনীয়তা নেই। কারণ নীচ দিয়েই সাধারণ পথচারীরা সহজেই পার হয়ে থাকেন। তবে সড়কের এই স্থানে একটি উড়াল সড়কের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। এছাড়াও ফুটওভারব্রিজটি ব্যবহার না করায় বর্তমানে এখানে নানা ধরনের ভবঘুরে মানুষের দখলে রয়েছে।  স্টেশনের আশপাশের নিরাপত্তা দেয়ার মত আমাদের রেল পুলিশের ব্যবস্থা নেই। তবে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে এ বিষয়টি অবহিত করা হবে।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি জাবেদুল ইসলাম বলেন, ‘যদিও বিষয়টি রেল পুলিশের দেখার কথা, তবে রেল স্টেশন এলাকায় যদি কোন মাদকসেবী বা ব্যবসায়ী থেকে থাকে তাহলে এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।


দেশজুড়ে