গাজীপুরের কালিয়াকৈরে জলাবদ্ধতা জনসাধারণ চরম ভোগান্তি

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরের কালিয়াকৈর পৌরসভা কয়েকদিন ধরে টানা বর্ষণের কারণে জলাবদ্ধতা চরম আকার ধারণ করেছে এতে করে জনসাধারণ ভোগান্তি চরমে ।

পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডের বেশ কয়েকটি এলাকায় পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। জলাবদ্ধতার কারনে বাসাবাড়ী, রাস্তাঘাট,ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ পানির মধ্যে ডুবে এলাকাবাসির চরম ভোগান্তির সৃষ্টি হয়েছে। পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডের পর্যাপ্ত পানি নিস্কাশনের ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকার কারনে বর্ষা মৌসুমে প্রতিবছরই পৌর এলাকাবসীকে পড়তে হয় এমন দূর্ভোগ এবং ভোগান্তিতে। অতিবৃষ্টির কারনে পৌরসভার প্রায় অধিকাংশ এলাকার রাস্তাঘাট ডুবে যাওয়ার কারনে স্কুলকলেজের শিক্ষার্থীরা প্রতিষ্ঠানে যেতে পারছে না। বৃষ্টি হলেই বাসাবাড়ী কলোনীতে পানি উঠে বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় কলকারখানার শ্রমিকসহ এলাকাবাসীকে কোমর পর্যন্ত পানিতে চলাচল করতে হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে পৌর এলাকার মানুষের ভোগান্তির যেন শেষ নেই। পৌরসভার চন্দ্রা ত্রিমোড় হইতে বলিয়াদি সড়কের রসুলপুর, বরিয়াবহ, ডাইনকিনি, ভাতারিয়া, বিষাইদ, হরতকিতলা পৌরসভার ৩ ও ৫ নং ওয়ার্ডের কিছু অংশ,আটাবহ এবং শ্রীফলতলী ইউনিয়নের কিছু এলাকা,ভাতারিয়া,গোয়ালবাথান, পৌর ৭নং ওয়ার্ডের পশ্চিম চান্দরা,মন্ডল পাড়া,হরিনহাটি,বিশ^াস পাড়া,রাখালিয়াচালা,সফিপুর পূর্ব পাড়া,উলুসাড়াসহ দুই দিনের অতিবর্ষনে কম পক্ষে শতাধিক কলোনীসহ ঘরবাড়ী এখন পানির নীচে। কোন কোন এলাকায় কোমর পানি দিয়ে কলকারখানার শ্রমিকসহ সাধারন মানুষ চলাচল করতে পারছে না। এ সব এলাকার বেশীর ভাগ দোকানপাট-ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের হরতকীতলা, ডাইনকিনি এলাকার বাসাবাড়ী ও কলকারখানার ডাইংয়ের পানিসহ একটি ড্রেনের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে আসছে। এই ড্রেনের সাথেই ওয়াল্টন কারখানা গড়ে উঠা এবং বিভিন্ন স্থানে অপরিকল্পিতভাবে ভরাট করে প্রভাবশালীরা স্থাপনা নির্মান করায় তা স্যুরো হয়ে যায়।

ওয়াল্টন কারখানা গড়ে উঠার কারনে ড্রেনের চার পাশের জমি ভরাট হয়ে যাওয়ার কারনে শুধু ড্রেন দিয়ে পুরো এলাকার পানি যাতায়াত করতে পারছে না প্রয়োজন অনুযায়ী। গত দুই দিনের অতিবৃষ্টিতে ওই ৫নম্বর ওয়ার্ডের মাই ওয়ান নামক এলাকার সামনে থেকে ডাইনকিনি রোডে ও হরতকীতলা রোডে রাস্তার উপড় কোমর পানি হয়ে যায়। কোমর পানি দিয়ে স্থানীয় কলকারখানার শ্রমিকসহ এলাকার মানুষকে চলাচল করতে হচ্ছে। অপর দিকে পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায়ও দেখা গেছে একই চিত্র। এই ওয়ার্ডের হরিন হাটি, বিশ^াস পাড়া,পশ্চিম চান্দরা এলাকা ঘুওে দেখা যায় বাসাবাড়ী ও বিভিন্ন কলোনীতে পানি উঠে সৃষ্টি হয়েছে অবর্ননীয় দুর্ভোগ । পৌরসভার পক্ষথেকে পানি নিস্কাশনের জন্য প্রয়োজনীয় ও পরিকল্পিত পদক্ষেপ গ্রহন না করার কারনে প্রতিবছর এমন ভোগান্তিতে পড়তে হয় বলে জানান পৌর এলাকার ভোক্তভোগিরা।

হরিনহাটি এলাকারকারখানা শ্রমিক,বছির উদ্দিন জানান,বৃষ্টি হওয়ার ফলে গত দুই দিন যাবত চারিদিক থেকে আসা ময়লাযুক্ত পানির মধ্যে বসবাস করছি। পৌর কতৃপক্ষকে বিগত দুই বছর যাবত জলাবদ্ধতার বিষয়টি আমাদের বাড়ীর মালিক জানিয়ে আসলেও এর কোন সমাধান হয়নি। হরতকিতলার লোকমান হোসেন জানান,বৃষ্টির কারনে এই এলাকার রাস্তাঘাট,বাড়ীঘর পানিতে ডুবে গেছে। ডাইনকিনি এলাকার শফিকুল ইসলাম চাঁনমিয়া জানান,আমার স’মিলসহ চন্দ্রা বাজারের মূল অংশটি পানিতে তলিয়ে গেছে। এ এলাকার লোকজনের চলাচলে খুবই অসুবিধা হচ্ছে। পৌরসভার পক্ষ থেকে এই জলাবদ্ধতার হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য দ্রুত ব্যবস্থা করা দরকার।


দেশজুড়ে